Feeds:
Posts
Comments

Archive for the ‘Political Column’ Category


মানুষ ব্যবসার প্রাচীন ইতিহাস ও চলমান বিশ্বের শ্রম বাজার

মানুষের ব্যবসা সেই প্রাচীন কাল থেকে চলে আসছে। বলা যেতে পারে পাঁচ বছরেরও পুরানো ইতিহাস। এখন সময় ছিল দাস শ্রমিকের ব্যবসা। সভ্যতার বিকাশের সাথে সাথে দাস প্রথা প্রায়ই উঠে গেছে বলা যায়। আমেরিকার মত দেশে দেড়শ’ দুশো বছর আগেও দাস ব্যবস্থা ছিল। দাস ব্যবস্থা তুলে দিতে গিয়ে আব্রাহাম লিন্কনকে জীবন দিতে হয়েছে। আমেরিকাতে কালোধলোর ঝগড়া এখনও লেগে আছে। সভ্যদেশ বা জাতির দাবীদার পশ্চিমীরাই দাস ব্যবসা দ্বারা সবচেয়ে বেশী পুঁজি তৈরী করেছে। আমাদের দেশেও এক সময় মানুষ বেচাকেনা হতো। নিবন্ধন মহাপরিদর্শকের অফিসে আমি মানুষ বেচাকেনার  একটি দলিল দেখেছি। আপনারা গেলেও দেখতে পাবেন। এটা হলো ক্রীতদাস ব্যবস্থা। এখন আর এই ব্যবস্থা নেই। ভারতের কোন কোন এলাকায় এখনও মানুষ বেচাকেনা হয় বলে শুনা যায়। পৃথিবী থেকে মানুষ বেচাকেনা আর দাস ব্যবসার অবসানের জন্যে মানব জাতিকে হাজার হাজার বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। প্রকাশ্যে দাস মুক্তির কথা ঘোষণা করেছে পবিত্র কালাম আল কোরাণ। আল্লাহর রাসুল(সা) দাস মুক্তির জন্যে নানা ধরনের কর্মসূচী গ্রহন করেছিলেন। দাস ব্যবসার উত্‍পত্তি হয়েছে মূলত: মানুষের দারিদ্র থেকে। সমাজে যে মানুষ দরিদ্র বা দূর্বল ছিল তাকেই দাস বানানো হয়েছে। কখনও কখনও পরাজিত মানুষকেও দাস বানানো হয়েছে। এর কারণ ছিল বিনামূল্যে শ্রম আদায় করা। পৃথিবীর কয়েদখানা গুলোতে নাকি এখনও বিনা পারিশ্রমিকে কাজ আদায় করে নেয়া হয়। সবচেয়ে বেদনাদায়ক দু:খের খবর হলো গনতন্ত্রের দাবীদার ও স্বঘোষিত বিশ্বনেতা আমেরিকা বিভিন্ন দেশে গোপন কয়েদখানা খুলে বসে আছে। সেখানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে আমেরিকার অপছন্দের লোকদের ধরে এনে আটক রাখা হয় এবং জোর করে বিনামূল্যে শ্রম আদায় করা হয়। এসব বিষয়ে বিশ্ব বিবেক এখনও তেমন জাগ্রত বা সোচ্চার নয়।

এখন বিশ্বব্যাপী শ্রমবাজার উন্মুক্ত। ধনী ও উন্নত দেশগুলো গরীব দেশ গুলো থেকে শ্রমিক নিয়ে যাচ্ছে। এসব দেশের শ্রমিকরা খুবই সস্তা। আমাদের বাংলাদেশ তেমনি একটি গরীব দেশ। তাই সারা পৃথিবীতে আমরা শ্রমিক পাঠিয়ে থাকি। সেই শ্রমিকেরা হাড়ভাংগা খাটুনী খেটে দেশে বিদেশী মুদ্রা পাঠায়। সেই মুদ্রা সরকার দেশের উন্নয়নে কাজে লাগায়। শুনেছি, এখন আমাদের প্রায় ৭০ লাখ শ্রমিক বিদেশে কাজ করছে। এরা বছরে ১২ বিলিয়ন ডলার দেশে পাঠায়। আরও বেশ কিছু অবৈধ শ্রমিক বিদেশ আছে যারা বৈধ হওয়ার জন্যে আপ্রাণ চেস্টা করছে। শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য সরকার একটি আলাদা মন্ত্রণালয় খুলেছেন। এখন সেই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন প্রধান মন্ত্রীর বেয়াই সাহেব। শ্রম মন্ত্রণালয় ও অধীদপ্তর নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। প্রতিদিন খবরের কাগজে এ বিষয়ে নানা খবর ছাপা হয়। এমন কি বায়রা কর্তৃক প্রকাশিত মাসিক ম্যাগাজিন ‘বাংলার জনশক্তি’ পড়লেও আপনি জানতে পারবেন দেশের শ্রমশক্তির রফতানী সম্পর্কিত নানা খবর।

দাস ব্যবসা এখন সরাসরি কোথাও নেই। তবে কম পারিশ্রমিক দিয়ে ঠকাবার ব্যবস্থা এখনও দেশের ভিতরে ও বাইরে জারী আছে। পুঁজির মালিক মনে করেন কম বেতন বা মজুরী দিলে তারা একটু বেশী পরিমানে লাভ করতে পারেন। আমাদের দেশে পোষাক শিল্প সেভাবেই গড়ে উঠেছে। তবে পোষাক শিল্পের মালিকরাও অনেক লড়াই করেছেন এই শল্পের অগ্রগতির জন্যে। সরকারও প্রচুর সহযোগিতা দিয়েছেন। শুনা যায় প্রায় ৩০ লাখ নারী এই শিল্পে শ্রম বিনিয়োগ করেছেন। কিন্তু বিনিয়োগের জন্যে তেমন সম্মানজনক মজুরী বা রিটার্ণ পাননি। এখন তাঁরা সজাগ হতে শুরু করেছেন। দু:খের বিষয় এই শিল্পে প্রচুর ভাংচুর ও আগুন লাগাবার অসত্‍ কাজ বার বার চলছে। অনেকেই মনে করেন এই অরাজকতার পিছনে বিদেশী হাত রয়েছে। বিদেশীদের সাথে হাত মিলিয়েছে বামপন্থী বলে পরিচিত এক শ্রেণীর অদৃশ নেতা ও নেত্রী। তবে এত অসুবিধার মাঝেও এই শিল্পের বিকাশের সাথে সাথে আরও বহু লিংকেজ শিল্প গড়ে উঠেছে। তাতে আরও অনেক শ্রমিকের কর্ম সংস্থান হয়েছে।

৭০ লাখ শ্রমজীবী মানুষ বিদেশে যেয়ে দেশের জন্যে ১২ বিলিয়ন ডলার দেশে পাঠালেও তাদের দু:খের একেবারেই অবসান হয়নি। এতে সরকার এবং এক শ্রেণীর এজেন্ট বা শ্রমশক্তি রফতানি কারক দায়ী। আজ পর্যন্ত একজন এজেন্টেরও তেমন কোন শাস্তি হয়নি। কিন্তু শ্রমিরা হয়েছে সর্বস্বান্ত। বিদেশ যায় গ্রামের কৃষকের সন্তানেরা জমি জমা বিক্রি করে। ভুয়া এজেন্টের মাধ্যমে বিদেশে গিয়েও অনেকে দারুন ভাবে ঠকেছে। অনেকেই এখন বিদেশের জেলে আছেন। সরকার এই ব্যাপারে তেমন কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারেননি। সম্প্রতি রেমিট্যান্স কমতে শুরু করেছে বলে পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। শুনা যায়, এই ব্যাপারে সরকারের কূটনৈতিক দরকষাকষি তেমন শক্তশালী হয়নি। কোথাও কোথাও সরকারের বিদেশনীতি অনেকেই দায়ী করেছেন। বহুদেশ আমাদের দেশ থেকে শ্রমিক না নিয়ে ভারত পাকিস্তান শ্রীলংকা থেকে শ্রমিক নিয়ে যাচ্ছে। সরকারের ভুল নীতির ফলে অনেক দেশ নানা ধরনের কারণ দেখিয়ে আমাদের শ্রমিকদের দেশে ফেরত পাঠিয়েছে।

সরকার নানা নীতি গ্রহন করেছেন, কিন্তু সেসব বাস্তবায়নে তেমন জোর পদক্ষেপ নেই। মন্ত্রী মহোদয়রা নানা কথা বলেন। মনে হয় ওসব কথার কথা। ভাবটা যেন গরীবের ছেলে বিদেশ গিয়েছে তাতে আমি বা আমাদের কি? অপরদিকে বাংলাদেশ ব্যান্কের গভর্ণর সাহেবও রাজনীতিকদের কথা বলতে শুরু করেছেন। তিনিও ইদানিং অনেক কথা বলেন যার কোন বাস্তবায়ন নাই। কিছু কিছু কাজ আছে যা গভর্ণর সাহেব নিজেই করতে পারেন। যেমন রেমিট্যান্সের টাকাটা যেন প্রেরকের স্ত্রী-সন্তান বা মা-বাপ খুব দ্রুত পান। তাদের যেন কোন কস্ট না হয়। সংগঠিত পোষাক শিল্পের মালিকরা সরকারের উপর যে পরিমান প্রবাব বা চাপ সৃস্টি করতে পারেন তা প্রবাসী শ্রমিক ও কর্মজীবীরা করতে পারেন না। তাদের তেমন কোন সংগঠনও নেই। শ্রমশক্তি রফতানীকারক সমিতি নিজেদের স্বার্থের জন্যে যেভাবে দরকষাকষি করতে পারেন সেভাবে প্রবাসীরা করতে পারেন না। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের নাম প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়। প্রবাসীদের সাথে কথা বলে দেখুন তারা মন্ত্রণালয় সম্পর্কে কি বলেন। একশ’ভাগ প্রবাসীই বলবেন তারা সরকারী অবহেলায় দিন যাপন করছেন।

এমন গুরুত্বপূর্ণ বৈদেশিক মুদ্রা আয়কারী খাতকে যে পরিমান গুরুত্ব সরকারের দেয়া উচিত ছিল তা সরকার দেননি। ফলে এখন জনশক্তি রফতানী কমছে। রেমিট্যান্সও কমছে। ১৯৭৬ সালে  ৬০৮৭ জন শ্রমিককে বিদেশে পাঠিয়ে বাংলাদেশ প্রথম জনশক্তি বাজারে প্রবেশ করে। আশা ছিল একদিন বাংলাদেশ বিশ্বের প্রধান জনশক্তি রফতানীকারক দেশ হিসাবে নিজের অবস্থান দৃঢ করবে। কিন্তু দেশবাসীর সে আশা পূরণ হয়নি। বিদেশে অবস্থানরত শ্রমিকদের নিবিড় দেখাশুনা করার জন্যে সরকার কোন ব্যবস্থা করেনি। বিদেশে দূতাবাস গুলোতে বিশেষ সেল খোলার দরকার ছিল। সরকারী অফিসাররা সেখানে বন্ধু বা হিতৈষী হিসাবে ব্যবহার না করে প্রভুর মতো ব্যবহার করে। বিদেশে পোস্টিং পাওয়ার জন্যে সরকারী নেতাদের আত্মীয় স্বজনরাই বেশী গুরুত্ব বা প্রাধান্য পেয়ে থাকেন। ফলে তারা সেবার কাজ না করে নিজেদের আখে গুছাতেই ব্যস্ত থাকেন।

জিডিপিতে প্রবাসী শ্রমিকদের অবদান প্রায় ১৫ শতাংশ ছিল। পোষাক শিল্পের চেয়ে অনেক বেশী বললে অনেকেই অবাক হবেন। জনশক্তি রফতানী খাতে পুরোটাই দেশের আয়। যারা বিদেশে যান তারা বিদেশেই খাদ্য বস্ত্র বাসস্থান জোগাড় করেন। তাদের জন্যে সরকারের কিছুই করতে হয়না। একজন লোকের সারা বছরের খাদা বস্ত্র বাসস্থান শিক্ষা স্বাস্থ্য কোন কিছুরই যোগান দিতে হয়না সরকারকে। উপরন্তু একজন প্রবাসী শ্রমিক দেশের জন্যে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা পাঠান। সরকার সত্যিকার অর্থা তাদের জন্য নীতি তৈরী করা ছাড়া তেমন কিছু করছেননা। প্রবাসী কল্যাণ ব্যান্কে প্রত্যেক প্রবাসীর শেয়ার থাকা দরকার। প্রবাসীদের পরিবার পরিজনের জন্যে বিশেষ স্কুল কলেজ হাসপাতাল স্থাপন করা দরকার। শুধু নামের জন্যে কোন প্রতিস্ঠান ষ্থাপন করে লাভ নেই। বায়রা ইন্সুরেন্স প্রবাসী শ্রমিকদের কি কাজে লাগছে তা দেশবাসী জানেনা।

Advertisements

Read Full Post »


বস্তি বলতে আমরা ইংরেজী স্লাম মনে করি। মানে বাস্তুহারা গৃহহীন মানুষেরা যেখানে বাস করেন। বস্তি শব্দটি এসেছে বসত শব্দ থেকে। উর্দুতে বা হিন্দীতে বস্তি মানে বসত বাড়ি। বাংলাতেও বসত বাড়ি বলে। তহশীল অফিসেও জমি জমার রেকর্ডে জমির বর্ণনা দেয়া হয় বসত বাড়ি ভিটে বাড়ি পুকুর কৃষিজমি অনাবাদী জমি ও সরকারি খাস জমি। সম্প্রতি জমি জমা বা বসত বাড়ি নানা কথা চলছে। একদিকে আবাসন মন্ত্রণালয় রিহ্যাব সদস্য ভুমি উন্নয়নকারী ও ফ্ল্যাট বাড়ি নির্মাতাদের নিয়ে প্রতিদিন কথা বলছেন। জনগণের উপকারের জন্যে নানা ধরণের আইন বানাচ্ছেন। রিহ্যাব সদস্যদের মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রতিস্ঠান আছে যারা ভুমি উন্নয়ন করে চড়াদামে বিক্রি করে। ভুমি উন্নয়নকারীদের নানাকথা চলছে। দামী দামী আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দিয়েই সবার চোখের সামনে তারা জমি বিক্রি করছেন। দামী দামী তারকারা পয়সা নিয়ে বিজ্ঞাপনের মডেল হচ্ছেন।

সম্প্রতি বাড়ি নিয়ে অনেক বাড়াবাড়ি হয়েছে। একটি বাড়ি নিয়ে সরকার ও বিরোধী দল কম কথা বলেনি। এই বাড়িটি ছিল সাবেক প্রধান মন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার। চলমান সরকার মনে করেন বাড়িটা খালেদা জিয়াকে দেয়া শুদ্ধ হয়নি। তাই লীজ বাতিল করে দেয়া হয়েছে। তারপরেও সরকার কম কথা বলেনি। ওই বাড়িতে কি ছিল তা নিয়ে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী সংসদে অনেক খিস্তি খেউর করেছেন। তারপরেই শুরু হয়েছে কার বাড়িতে কি আছে তা নিয়ে নানা কথা। এমন কি বংবন্ধুর ৩২ নম্বর বাড়িটি তিনি কেমন করে বানিয়েছেন, তাঁর কোন টিআইএন ছিল কিনা। কার বাপদাদার কি ছিল তা নিয়েও কথা উঠেছে। আমাদের প্রধান মন্ত্রী বিরোধী দলের কোন কথায় কান দেননা। এখন তিনি ক্ষমতায় আছেন তাই এতে তাঁর কিছু আসে যায়না। জানিনা, দেশবাসীকে আর কি কি শুনতে হবে।

১/১১র মইনউদ্দিন- ফখরুদ্দিনের আদর্শ উদ্দেশ্য ছিল তা আজও দেশবাসীর কাছে পরিস্কার নয়। তবে যে ক্ষতি দেশের হয়েছে তা একেবারেই পরিস্কার। প্রথম দিকে মনে হয়েছে ওই সেনা সমর্থিত সরকার দেশের দুটি বৃহত্‍ দলকে ধ্বংশ করতে চেয়েছিল। অনেকে বলেন দুই নেত্রীকে রাজনীতি থেকে বহিস্কার করতে চেয়েছিল তথাকথিত সেই কেয়ারটেকার সরকার। তখন নয়া দিগন্তে বেশ কটি কলাম লিখে আমি বলেছিলাম ওই দুই নেত্রীকে রাজনীতি থেকে নির্বাসন দেয়া সম্ভব হবেনা। কারণ দেশের সাধারন মানুষ ও ভোটাররা দুই ভাগে বিভক্ত। বড় দুটি দলের সমর্থকের সংখ্যাও কোটি কোটি। শুনেছি ১/১১ সরকার দুটি দলের মার্কা নৌকা ও ধানের শীষকেও বাতিল করতে চেয়েছিল। সম্প্রতি বিশ্ব কাঁপানো উইকিলিক্স প্রকাশ করেছে পশ্চিমা দেশগুলো বাংলাদেশে নির্বাচন চেয়েছে। কিন্তু দুই নেত্রীকে অবশ্যই নির্বাচনে আনতে হবে। খালেদা জিয়া নাকি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে চাননি। শেষ পর্যন্ত তিনি নানা ধরনের ভয় ভীতির মাঝেই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছেন। না করলে নাকি দেশে সামরিক শাসন জারী হতো। তাই নির্বাচনে হেরে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত থাকা স্বত্তেও তিনি অংশ গ্রহণ করেছেন। ফলে ১/১১র সরকার তাঁর ও তাঁর পরিবারের প্রতি যা করতে চেয়েছিল এখন সে কাজটি করছে। খালেদা জিয়াকে বাস্তুহারা করা হয়েছে। তাঁর দুই ছেলেকে মামলা মোকদ্দমা দিয়ে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছে। প্রধান মন্ত্রী বলেছেন, দেশবাসী তাঁর গুলশানের বাড়িটিও নিয়ে নিতে পারে। সাভারে জিয়া সাহেবের যে জমি ছিল তাও নাকি সরকারী দলের লোকেরা দখল করে নিয়ে গেছে।

শুরু করেছিলাম রাজধানীতে বসবাসকারী সাধারন মানুষের বসতবাড়ি জমি বা ফ্ল্যাট নিয়ে কিছু কথার জন্যে। খালেদা জিয়ার বাড়িটা নিয়ে নাকি বিডিয়ার  জওয়ানদের বিদ্রোহে নিহত অফিসারদের পরিবারের জন্যে ফ্ল্যাট তৈরি করা হবে। তাতে নাকি অনেক পরিবারের বত ব্যবস্থা হবে। তবে রাস্ট্রের দায়িত্ব ছিল এবং রয়েছে সব মানুষের জন্যে মাথা গোঁজার ব্যবস্থা করা। জাতি সংঘেরও তেমন ওয়াদা রয়েছে। সরকার তা পারেনি। কখন পারবে তার কোন নিশ্চয়তা বা ওয়াদা নেই। স্ল্যাম দেখিয়ে নাকি বেশ কিছু এনজিও কর্মী ও নেতা দুটো পয়সা কামিয়ে নিচ্ছেন। বিদেশী সাহেবরাও বস্তিতে ঘুরে ঘুরে ছবি তুলে নিজ দেশে নিয়ে দেখাচ্ছেন। শুনেছি রাজধানীতে ৪০ শতাংশ মানুষ বস্তি ফুটপাত রেল স্টেশন বাস ও লঞ্চ টার্মিনালে রাত কাটান। মানে  ৭০ লাখের বেশী মানুষ গৃহহীন। এদের প্রতিদিন প্রধান মন্ত্রী মন্ত্রী সংসদ সদস্য ও আমলারা দেখতে পান। রাজনীতির মিছিলে নাকি এদের বেশ দাম। মিছিলে গেলে একশ’ বা দুশো’টাকা পায়। গুলি কেয়ে মরলে শহীদ হয়। রাজনৈতিক দলগুলো এদের শহীদ বানিয়ে শোক দিবস পালন করে। রাজধানীতে রাজনীতির জন্যে রিকসা, ঠেলা গাড়ি ও ভিক্ষুকের তাই খুব প্রয়োজন।

বসতি সমস্যা সমাধানে সরকার কি করছেন? আমরা তা সুস্পস্ট ভাবে দেখতে ও জানতে পারছিনা। রাজধানীতে বা সারা দেশে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ ও হাউজিং সেটেলমেন্ট বিভাগ সরকারী জমি বিতরন করছেন। কৃষক বা সাধারন মানুষের জমি সস্তায় হুকুম দখল করে কিছু বেশী দামে বা বাজার থেকে অনেক কম দামে সুবিধাভোগী সমাজের কাছে বিক্রী করছে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ(রাজউক) রীতিমত জমির ব্যবসায়ী হিসাবে নামজাদা প্রতিস্ঠানে পরিণত হয়েছে। নিয়মিতই জমি দখল করছে এবং প্লট বানিয়ে বিক্রী করছে। যা অন্যান্য সাধারন জমির ব্যবসায়ীরাও করছে। রেগুলেটরী বা আইন প্রয়োগ ও বাস্তবায়নকারী প্রতিস্ঠান হিসাবে তেমন কোন সাফল্য রাজউক এখনও দেখাতে পারেনি। বার বার দাবী উঠেছে রাজউক যেন আর জমির ব্যবসা না করে। কিন্তু সেদিকে নজর দেয়ার সরকারের সময় নেই। এতে জনমনে ধারনা হয়েছে রাজউকের জমির ব্যবসার সাথে সরকার এবং প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জড়িত। রাজউক হচ্ছে থানার দারোগার মতো। নিজেই অভিযোগ এনে যেকোন নাগরিককে পাকড়াও করে আদালতে চালান দেয় এবং নিজেই সাক্ষী দেয়। সরকারের উচিত অবিলম্বে আইন করে বলা রাজধানীতে আর জমি বরাদ্দ দেয়া হবেনা। রাজউক ফ্ল্যাট তৈরি করে বিক্রি করবে। বেসরকারী ভুমি উন্নয়নকারীরাও শুধু ফ্ল্যাট তৈরি করবে।

এবার রিহ্যাব সদস্যদের নিয়ে কিছু কথা বলা প্রয়োজন। এখন নাকি রিহ্যাবের সদস্য সংখ্যা ৮শ’র উপরে। তন্মধ্যে বিজ্ঞাপনের কারনে শ’খানেক কোম্পানীর নাম জানা যায়। রিহ্যাব ডাইরেক্টরিতে সদস্যদের নাম পাওয়া যায়। রিহ্যাব কিছু বুলেটিনও প্রকাশ করে থাকে। কিন্তু একজন গ্রাহক হিসাবে যদি কোম্পানী গুলো সম্পর্কে জানতে চান সঠিক তেমন কোন তথ্য কোথাও পাবেননা।বেশীর ভাগ ক্রেতাকেই না জেনেই ফ্ল্যাট বুকিং দিতে হয়। তারপর কখন ফ্ল্যাট পাবেন তার কোন নিশ্চয়তা নেই। শুধু জাঁদরেল ক্রেতাই হুমকি ধামকি দিয়ে নিজের যোলআনা বুঝে নিতে পারেন। ক্ষমতাবান লোকেরাতো প্রভাব খাটিয়ে বিনে পয়সায় ফ্ল্যাট বা জমি পেতে পারেন। ক্ষমতাহীন মধ্যবিত্তদের যত কস্ট। জমির মালিক ডেভেলপারকে জমি দেয়ার আগে মিস্টি মধুর স্বর্গীয় ব্যবহার পেয়ে থাকেন। চুক্তি করে জমি ডেভেলপ করার জন্যে দেয়ার পর কি ঘটতে পারে তা কল্পনাও করতে পারবেননা। শুনেছি উত্তরায় এক রিহ্যাব সদস্য ফ্ল্যাট বানিয়ে জমির মালিককে কিছুই দেননি। দুই হাজার সালে জমি দিয়ে তিনি এখনও ডেভেলপারের পিছনে ঘুরছেন। সাত মসজিদ রোডে এক বিঘা জমির উপর বাণিজ্যিক ভবন তৈরি করার জন্যে ডেভেলপার চুক্তি করেছেন ২০০৩ সালে। আজও সেই ভবন তৈরি হয়নি। সেখানে এখন সাউথ ইস্ট ব্যান্কের সাইন বোর্ড ঝুলছে। ইতোমধ্যে জমির মালিক মারা গেছেন। রিহ্যাব কখনই এ ধরনের সমস্যা সমাধান করতে পারেনি। সরকার নানা ধরনের কঠোর আইন তৈরি করছেন। গ্রাহক বা ভোক্তার কিছু আইন গত অধিকার হয়ত এতে বাড়বে। কিন্তু জমি বা ফ্ল্যাট কিনে কে মামলা মকদ্দমায় যেতে চায়। কোম্পানীরতো দামী আইনজীবী আছে। গ্রাহকের কে আছে? এ ধরনের মামলা  কতদিন চলে তা সবাই জানেন। এতে ডেভেলপারই উপকৃত হয়। এ ধরনের সমস্যার সমাধানে রিহ্যাব শুধু সমঝোতার চেস্টা করতে পারে। কিন্তু তারা তাদের সদস্যদের স্বার্থই প্রধানত দেখে থাকেন। রিহ্যাবের বর্তমান ইমেজ খুবই নেগেটিভ বা নেতিবাচক। রিহ্যাবের নিজস্ব কোন রিসার্চ সেল বা গবেষনাগার নেই। বহুদিন ধরে এ ব্যাপারে তাদের অনুরোধ করেও ফল পাওয়া যায়নি। জনশক্তি রফতানীকারকদের এক সময় আদম ব্যাপারী বলা হতো। তখন এত আইন কানুন ছিলনা। এখন এ ব্যাপারে সরকার ও জনগন সজাগ। তবুও গরীব মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। তেমনি রিহ্যাবও একটি শক্তিশালী হাউজিং সংগঠন। বিগত বছর গুলোতে রিহ্যাবের সদস্যরা প্রায় এক লাখের মতো ফ্ল্যাট নির্মান ও সরবরাহ করেছে। কয়েক হাজার প্লট ডেভেলপ করে বিক্রি করেছে। প্রায়। যে পরিমান কাজ হয়েছে সেই পরিমান পজিটিভ ইমেজ তৈরি হয়নি। কারন তাদের কাজের পেছনে সুখ বা আনন্দের চেয়ে বেদনা বেশী। বহু মানুষের চোখের পানি জড়িত তাদের ধনী হিসাবে বিকশিত হওয়ার পেছনে।

চাল ডাল তেল নুনের দাম বাড়লে চারিদিকে চিত্‍কার শুরু হয়ে যায়। কারন না খেলে মানুষ মরে যাবে। সেজন্যে জোর করে হলেও সরকার দাম কম রাখার চেস্টা করে। পোষাক শিল্প ও পুরাণো গরম কাপড় আমদানীর কারনে মানুষ সস্তায় কাপড় পরতে পারছে। কিন্তু চিকিত্‍সা ও বসতির তেমন কোন ব্যবস্থা রাস্ট্র করতে পারেনি। সারা দেশে কয়েক কোট মানুষ গৃহহীন। এ নিয়ে প্রচুর কথা হয়। লেখালেখি ও সেমিনার হয়।বসতি সব মানুষের মৌলিক অধিকার। বিষয়টা সম্পর্কে মানুষকে সজাগ করা হয়। বস্তির কথা শুরুতেই বলেছি। সব মানুষকে বসত দেয়া খুবই কঠিন কাজ। তবে অসম্ভব নয়। কিন্তু সরকার বা উপরতলার মানুষেরা বিষয়টাকে তেমন গুরুত্ব দেয়না। বিগত বছর গুলোতে সরকার রাজধানীতে জমি বা প্লট বরাদ্দ না দিয়ে যদি ফ্ল্যাট বরাদ্দ দিতো তাহলে কয়েক লাখ বেশী লোকের বসতের ব্যবস্থা হতো। কিন্তু সরকারের নীতি হলো কিছু সুবিধাভোগী মানুষকে জমি বা প্লট দেয়া। রাজনীতিক, সামরিক বেসামরিক আমলা, ধনীদের সবার জমি আছে রাজউক এলাকা গুলোতে। সরকারী দাম দশ লাখ হলে বাজারে দাম এক কোটি টাকা। এর মানে হলো সরকার রাতারাতি কিছু সুবিধাভোগীকে রাতারাতি ধনী করে দিলেন। এ নিয়ম আর কতদিন চলবে কে জানে। রাজধানীতে এখন ৩০ লাখ টাকায় কোন ফ্ল্যাট পাওয়া যায়না। বসতের মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ব্যান্কগুলো দীর্ঘ মেয়াদী ঋণ দেয়না। স্বল্পমেয়াদী ঋণে গ্রাহক টাকা শোধ করতে পারেনা। ৩০ বছর মেয়াদী ঋণ চালু করার জন্য বলেও কোন ফল পাওয়া যায়নি। খালেদা জিয়ার বসত ভিটা টানাটানি করে ইতোমধ্যেই সরকার নানা ঘটনা তৈরি করেছেন। আইন আর নিয়মনীতির কথা বলে ওই বাড়ির দলিল বাতিল করা হয়েছে। খতিয়ে দেখলে রাজধানীতে বহু বাড়ি পাওয়া যাবে যা বরাদ্দে ষোলয়ানা নিয়মনীতি মানা হয়নি।

Read Full Post »


নোবেল বিজয়ী ড: ইউনুস ও গ্রামীন ব্যান্কের হাল হকিকত।

গ্রামীণ ব্যান্ক ও ড: ইউনুসকে নিয়ে এখন দেশে তোলপাড় চলছে। সরকার ও সরকারী দল ড: ইউনুসের উপর ক্ষেপে গেছেন। স্বয়ং প্রধান মন্ত্রী ইউনুসকে নিয়ে নানা কথা বলেছেন যা অশোভন পর্যায়ে পড়ে বলে আমার মনে হয়। ইতোমধ্যে পররাস্ট্র মন্ত্রী দিপুমনি, দলের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ ও ছাত্রলীগের নেতারাও ইউনুসের বিরুদ্ধে অনেক কথা বলে ফেলেছেন। দেশের সুধীজন বলেছেন, অভিযোগের তদন্তের আগে এসব কথা বলা উচিত হয়নি। ইউনুস নিজেই সরকারী তদন্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। সুযোগ পেয়ে মিডিয়া ও নানাজন নানা কথা বলতে শুরু করেছেন।যাক শেষ পর্যন্ত সরকার তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। ড: ইউনুস এখন একজন বিশ্ব নাগরিক। দরিদ্র গ্রামীন নারীদের ভিতর বিনা বন্ধকে ক্ষুদ্র ঋণ বিতরন করে বিশ্বব্যাপী নাম করেছেন। এজন্যে তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার পেয়েছেন। সে সময়ে দেশের মানুষ আনন্দে আত্মহারা ছিলেন। তখন সরকার বেসরকার সবাই দলবেধে ইউনুস সাহেবকে অভিনন্দন জানিয়েছে। আমাদের  দেশে  জ্ঞানী অজ্ঞানী সব মানুষই

হুজুগে নাচতে থাকেন। বিখ্যাত এক প্রবাদ আছে, চিলে কান নিয়েছে তাই সবাই চিলের পিছনে দৌড়াতে থাকে। কানওয়ালা কখনও নিজের কানে হাত দিয়ে দেখেনা। এখন নরওয়ের টিভিতে অনুসন্ধান মুলক রিপোর্ট প্রচারিত হওয়ার পর আমরা আবার খোঁজ খবর না নিয়েই নাচতে শুরু করেছি। হঠাত্‍ করে নরওয়ে টিভি এ কাজটা করলো কেন তা আমরা ভাবিনি। নরওয়ে সরকারের সাথে হঠাত্‍ করে ইউনুস সাহেবের বিরাধ বাধলো কেন। শুধু গ্রামীন ব্যান্ক নয় গ্রামীন ফোন নিয়েও ফিল্ম তৈরী করে প্রচার করা হয়েছে। ওইসব বিশষ রিপোর্টে বলা হয়েছে  ইউনুস সাহেব নোবেল প্রাইজ নেয়ার সময় যে বক্তৃতা দিয়েছেন তাতে নাকি তিনি মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। তিনি নাকি বলেছেন গ্রামীন ফোন গ্রামের সাড়া তিন লাখ দরিদ্র মহিলাকে মোবাইল ফোনের সিম দিয়েছেন। নরওয়ের রিপোর্টার বাংলাদেশে এসে গ্রামে গ্রামে ঘুরে দেখেছেন কোথাও কোন গ্রামের দরিদ্র মহিলাকে সিম দেয়া হয়নি। ওই রিপোর্টার আরও বলেছেন, গ্রামীন ক্ষুদ্র ঋণের কারণে ঋণ গ্রহীতাদের দারিদ্র দূর হয়নি। তারা গ্রামের বহু মহিলার সাক্ষাতকার গ্রহণ করেছেন। ডকুমেন্টারী ওই ফিল্মের রিপোর্ট বিশ্বব্যাপী অন্যান্য মিডিয়াতেও প্রচারিত হয়েছে। তার ঢেউ এসে লেগেছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশ মিডিয়া গ্রামী ব্যান্ক ও ড: ইউনুস বিষয়ে মাঝে মধ্যে টুকটাক কিছু বললেও সিরিয়াসলি কখনই কিছু বলেনি। ড: ইউনুস নিজেও বাংলাদেশের মিডিয়াকে কখনই নিজের আস্থায় নিতে নিতে চাননি বা নিতে চাননি। ফলে দেশী মিডিয়া গ্রামীন ব্যান্ক সম্পর্কে সব সময়ই আলো আঁধারীতে ছিল এবং আছে। বেশীর ভাগ মানুষই জানেনা এই ব্যান্কটি সরকারি না বেসরকারি। এটি কি এনজিও? এটি সমবায় সংস্থা? এটি ব্যাক্তি মালিকানা সংস্থা?

সবাই জানে ১৯৭৬ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির শিক্ষক থাকা কালে ড: ইউনুস জোবরা গ্রামে তাঁ ক্ষুদ্রঋণ আইডিয়াটি চালু করেন সম্ভবত জনতা ব্যান্কের আর্থিক সহযোগিতা নিয়ে।কিন্তু যে পরিবার ঋণ নিয়েছিল তাদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি। পরে তিনি তাঁর এই চিন্তা ভাবনা নিয়ে প্রেসিডেন্ট জিয়ার সাথে দেখা করেন। জিয়া সাহেব ড: ইউনুসকে উত্‍সাহিত করার জন্যে বাংলাদেশ ব্যান্ককে নির্দেশ দেন। বাংলাদেশ ব্যান্ক ড: ইউনুসের আইডিয়াকে একটি প্রকল্প হিসাবে গ্রহণ করে তাঁকেই প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ দেয়। আমি যতদূর জানি, এটাই ছিল গ্রামীন ব্যান্ক প্রকল্পের যাত্রা শুরু।তখন ড: ইউনুস কিছুদিন বাংলাদেশ ব্যান্কেও অফিস করেছেন। গ্রামীন ব্যান্কের অফিসিয়াল ওয়েব সাইটে গেলে প্রতিস্ঠানটির ব্যাকগ্রাউন্ড ইনফরমেশন গুলো পাওয়া যায়না। শূধু বলা হয়েছে ১৯৭৬ সালে ড: ইউনুস ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পটি চালু করেন। ১৯৮৩ সালে প্রেসিডেন্ট এরশাদের আমলে  সরকার গ্রামীণ ব্যান্ককে একটি পূর্ণাংগ ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা হিসাবে স্বীকৃতি দিয়ে  একটি আইন পাশ করে। এটা মূলত একটি সরকারী প্রতিস্ঠান। শুরু থেকেই বাংলাদেশ সরকার গ্রামীণ ব্যান্ককে আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে  আসছে। সাইফুর রহমান সাহেবের আমলে ৩০০ কোটি টাকা ঋণও দেয়া হয়েছিল।শুনেছি এক সময় সরকার এই ব্যান্কের যোলআনা মালিক ছিল। পরে আস্তে আস্তে কেমন করে যেন সরকারের মালিকানা থেকে চলে যায়। এই ব্যাপারে সরকারের গাফেলতিও কম নয়। এখন নাকি সরকার মাত্র দশ ভাগ শেয়ারের মালিক।

নোবেল পুরস্কার লাভের পর আমি লিখেছিলাম এই প্রাইজ পাওয়া উচিত ছিল বাংলাদেশ সরকার ও ড: ইউনুসের। কিন্তু পেল গ্রামীণ ব্যান্ক ও ড: ইউনুস। কারণ সরকারই এই ব্যান্কের প্রতিস্ঠাতা। ওই সময়ে বাংলাদেশ ব্যান্কের গভর্ণর ড: সালেহ উদ্দিনও বলেছিলেন এই ব্যান্কের প্রতিস্ঠাতা সরকার। কি কারণে যেন ড: ইউনুস শুরু থেকেই এই ব্যান্কের প্রতিস্ঠার ইতিহাসকে গোপন করার চেস্টা করেছেন। আমি একটি চিঠি লিখে বিষয়টি সম্পর্কে নোবেল পীচ কমিটিকে জানিয়েছিলাম। আমার চিঠির একটি অংশ তখন নিউএজ বা ডেইলী স্টার পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল। সেই সময়ে বিদেশী কোন কোন কাগজে বলা হয়েছিল ড: ইউনুস গ্রামীণ ব্যান্কের মাধ্যমে একটি মুসলিম প্রধান দেশে সুদকে জনপ্রিয় করেছেন। কথাটি মহাসত্য। বাংলাদেশের গ্রামে গন্জে গরীব মানুষ জানতে ও বুঝতে পেরেছে সুদ এবং গ্রামী ব্যান্ক কি জিনিস। গ্রামের লাখ লাখ মানুষ গ্রামীণ ব্যান্কের ফাঁদে পড়ে সর্বহারা ও গ্রামছাড়া হয়েছে। ঠিক এ সময়ে শেরে বাংলার ঋণ সালিসী বোর্ডের কথা মনে পড়েছে। তখন সুদী মহাজনের জালে আটকা পড়ে লাখ লাখ গরীব মানুষ সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছিল। তখন বেশীর ভাগ সুদী মহাজন ছিল হিন্দু ধণীরা। তারপর এদেশে আসে কাবুলীরা। শেরে বাংলা ঋণ সালিসী বোর্ড করে গরীব মানুষদের রক্ষা করেছিলেন। এনজিওদের কাছ থেকে ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে যারা সর্বস্বান্ত হয়েছে তাদের বাঁচাবার জন্যে সরকার এখনও ঋণ সালিসী বোর্ড গঠণ করেননি। ও রকম কিছু করার কোন আলামত দেখছিনা। বিগত ৩০ বছরে ক্ষুদ্রঋণের ফলে আমাদের গরীব গ্রামের মানুষের কি উপকার হয়েছে তা দেশবাসী এখনও জানেনা। সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম সাইফুর রহমান সাহেব একবার বলেছিলেন ৩০ বছরে গ্রামী ব্যান্ক ৬০ লাখ গরীব মানুষের মাঝে ঋণ বিতরন করেছে। দারিদ্র বিমোচনের টি এই হারে চললে তিনশ’ বছরেও বাংলাদেশের গ্রামী দারিদ্র যাবেনা। সরকারও ইউনুস সাহেবের নীতি অনুসরন করতে পারবেনা।

সুদী ব্যবসা দ্বারা গরীবের দারিদ্র যায়না। রাস্ট্রীয় নীতি ছাড়া পৃথিবীর কোথাও দারিদ্র দূর হয়নি। শুধু রাস্ট্রকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে কতদিনে সে তার জনগণকে দারিদ্র থেকে মুক্তি দিতে চায়। সূদ যে গরীবকে আরও গরীব করে দিতে পারে তা আলকোণ সুস্পস্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছে। তাই আলকোরাণ সূদকে হারাম করে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। আল্লাহর রাসুল বিদায় হজ্বের ভাষণে মহাজনদের সকল সূদ মওকুফ করে দিয়েছিলেন। ওই ঘোষণার মাধ্যমে তত্‍কালীন মক্কা এবং আশে পাশের মানুষ মুক্তিলাভ করেছিলো। আমরা সত্যিই বড়ই হতভাগ্য। আলকোরাণ ও রাসুলের(সা) ঘোষণার প্রায় দেড় হাজার বছর পরেও আমরা সামাজিক ও রাস্ট্রীয় ভাবে সূদী ব্যবসায় জড়িয়ে আছি। শুধু তাই নয় , এই হারামকে রাস্ট্র প্রশংশিত করেছে। ড: ইউনুস বলেছেন, তিনি ব্যবসা করেন। গ্রামীন ব্যান্ক কোন দাতব্য ব্যবসা নয়। গ্রামীন ব্যান্ক বিনা সিকিউরিটিতে গরীবদের ঋণ দেয়। গ্রামীণ ব্যান্কের ঋণ নিয়ে কতজন গরীব গরীবানা ত্যাগ করতে পেরেছেন তা কোনদিন সরকার বা সমাজ চায়নি। গ্রামীণ ব্যান্ক ৩০/৩৬ পারসেন্ট সুদ গ্রহণ করে এটা জানার পরও সরকার কখনও কিছু বলেনি। কারণ আজও অজানা। সুদের ব্যবসা করে ড: ইউনুস শান্তিতে নোবেল পাওয়ার পর আমরা নেচেছি গেয়েছি। এখন দলবেঁধে তাকে গালিগালাজ করছি। আবার কেউ কেউ বলছেন, ইউনুসের নামের সাথে বাংলাদেশের মর্যাদা জড়িত। মানে তাঁকে আর গালগাল করা ঠিক হবেনা।

নোবেল পুরস্কার নিয়ে ইতোমধ্যে তোলপাড় সৃস্টি করেছে গণচীন। চীনের ভিন্ন মতাবলম্বী গণতন্ত্রী বলে পরিচিত জিউ বাওকে নোবেল পুরস্কার দেয়ায় চীন ক্ষুব্দ হয়েছে। চীন সরকার তাদের মনোভাব নোবেল কমিটিকে জানিয়েছে। চীনকে সমর্থন করে বিশ্বের বহুদেশ পুরস্কার বিতরণী অনুস্ঠানে বহু দেশ ও সংগঠণ অংশ গ্রহণ করেনি। ফলে নোবেল পুরস্কার বিতর্কিত হয়ে পড়েছে। নোবেল শান্তি পুরস্কার একটি রাজনৈতিক পুরস্কারে পরিণত হয়ে পড়েছে। সরকার বা রাস্ট্রের আপত্তিকে অগ্রাহ্য করে এর আগেও ইরাণের শিরিণ এবাদি এবং মায়ানমারের আং সাং সুচিকে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেয়া হয়েছে। যুদ্ধরত ফিলিস্তিন ও ইজরায়েলের নেতা আরাফাত ও শ্যারনকে শান্তি পুরস্কার দেয়া হয়েছে।  নোবেল শান্তি পুরস্কার সম্পর্কে লোকে নানা ধরনের তামাশা করে। বলে, আপনি আপনার মায়ের বিরুদ্ধে বদনাম করুন আপনাকে পশ্চিমারা নোবেল দিয়ে দিতে পারে। সবচেয়ে মূল্যবান ইস্যু হলো এখন ইসলাম। আপনি ইসলামের বিরুদ্ধে বলুন আপনাকে নোবেল দিয়ে দিবে।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড: আহমদ শাফি নোবেল নিয়ে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন যা বিডিনিউজ প্রকাশ করেছে। আমি ড: শাফির সাথে একমত। শান্তি পুরস্কার প্রদানের শক্তিশালী মাপকাঠি হলো এখন রাজনীতি। ড: শাফি বলেছেন বিশ্বের সব পুরস্কারের ক্ষেত্রেই নানা ধরনের রাজনীতি হয়ে থাকে। এশিয়ার নেবেল বলে বহুল প্রচারিত ম্যগ সাই সাই এওয়ার্ড ও তেমনি একটি পুরস্কার। বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন মানুষ এ পুরস্কার পেয়েছেন। এদের মাত্র কয়েকজনকে পাঠক হয়ত চিনেন। বাকীরা অপরিচিত। কিন্তু পুরস্কার দাতারা তাদের চিনেন। সম্প্রতি আমাদের দেশের একজন নামজাদা এনজিও ব্যবসায়ী স্যার উপাধি পেয়েছেন বৃটেনের রাণীর কাছে থেকে। তাঁর পুর্ব পুরুষও নাকি ইংরেজদের কাছ থেকে খান বাহাদুর টাইটেল পেয়েছিলেন। আর শুনে একেবারেই আমরা গদগদ। এই ইংরেজরাই ১৯০ বছরে এদেশে কোটি কোটি লোককে হত্যা করেছে। এই দেশটাকে পৃথিবীর দরিদ্রতম দেশে পরিণত করেছে। চীনারা একটি সম্মানিত জাতি বলেই পশ্চিমাদের ফাঁদে পা ফেলেনা। জাপানীরা এখনও চীনের কাছে ক্ষমা চেয়ে কুল পাচ্ছেনা পূর্ব পুরুষের অপরাধের জন্যে।

আমাদের দেশে নানা ধরণের সরকারী পুরস্কার আছে। সব পুরস্কারই এখন রাজনৈতিক পুরস্কারে পরিণত হয়েছে। সরাকরের যাকে পছন্দ তাকেই রাস্ট্রীয় পুরস্কার দেয়া হয়। কেন দেয়া হয় তার কোন কারণ নেই। কবি শিল্পী বুদ্ধিজীবীদেরও রাজনৈতিক ভাগ আছে। একদল হলো আওয়ামী বুদ্ধিজীবী, আরেক দল বিএনপি বুদ্ধিজীবী। এ নিয়ে নাকি প্রচুর তদবির করতে হয়। শুনেছি, গল্প কিনা জানিনা, আমাদের এক বন্ধু মন্ত্রীকে বলেছিলেন তাকে একুশে পুরস্কার না দিলে সে সচিবালয়ের ন’তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করবে। সেবার সে একুশে পদক পেয়েছিলো। সরকারকে ধন্যবাদ তাকে পুরস্কার দেয়ার জন্যে। তাই সে এখনও বেঁচে আছে।( ershadmz40@yahoo.com )

Read Full Post »


শহীদ জিয়ার ভাংগা সুটকেস ছেঁড়া গেঞ্জী ও অন্যান্য

‘তোমরা তাদের উপাস্যকে গালি দিওনা। ওরা রেগে গিয়ে তোমার আল্লাহকে গালি দিবে।’ এটা আমার মালিক আল্লাহপাকের কথা। আওয়ামী লীগকে কখনই গালি দিবেন না বা মন্দ বলবেন না। তাহলে ওরা যে ভাষায় কথা বলবে তার উত্তর দেয়ার জন্যে আপনার কাছে কোন শব্দ থাকবেনা। আমাদের ছাত্র জীবনে বহু ছাত্রলীগ নেতা আমার বন্ধু ছিল। এক সাথে আড্ডা দিয়েছি। নানা বিষয়ে মত বিনিময় করেছি।কখনও রাগারাগি বা হাতাহাতি হয়নি। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কিমিটির অনেকের সাথে আমার বন্ধুত্ব ছিল। তাঁরা সবাই ছিলেন পরশীলিত ও পরিমিতি বোধ সম্পন্ন। অনেকের প্রচুর লেখাপড়া ও জ্ঞান ছিল। এদের কেউই দলের প্রথম কাতারে আসতে পারেনি। শেষাবধি অনেকেই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না।আমার শহর ফেণীতে সর্বজন শ্রদ্ধেয় নেতা ছিলেন খাজা সাহেব। আমি তাঁকে ফেণীর রাজা বলতাম। নোয়াখালী জেলার সব আওয়ামী লীগ নেতা তাঁকে সম্মান করতেন। বংগবন্ধুকেও দেখেছি তাঁকে সম্মান দিয়ে কথা বলতে। তালেব আলী সাহেবকে আমরাই রাজনীতিতে নিয়ে এসেছিলাম।কয়েকবার জাতীয় সংসদের সদস্য হয়েছেন। সময় ও মূল্যবোধের পরিবর্তনে তিনি নমিনেশন পান না। এখনও জীবিত আছেন, কিন্তু রাজনীতিতে নেই। এখন নাকি ও রকম সত্‍ মানুষের  রাজনীতিতে প্রয়োজন নেই।

বাংলাদেশের নেতিবাচক রাজনীতির কথা বলে ও লিখে শেষ করা যাবেনা। সর্বত্রই চলছে বিরাট হতাশা। যাদের কাছে টাকা আছে শুধু তারাই রাজনীতি করবে।যাদের অস্ত্র আছে তারা রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করবে। ধনীরা টাকা দিয়ে তাদের  বেতনভুক তাবেদারদের  নির্বাচনে জয়ী করে সংসদে নিয়ে আসবে। দুয়েকজন ভাল মানুষ নির্বাচিত হলেও তাদের কোন পাত্তা নেই। বর্তমান কেবিনেটে সিনিয়র অভিজ্ঞ রাজনীতিকদের কোন স্থান হয়নি। হয়ত নির্বাচনের আগেই বিষয়টা নির্ধারিত হয়েছিল। তাই এখন অনেক নতুন মুখ এসে গেছে। প্রধানমন্ত্রী ভাল করেই জানেন ওই অজানা অচেনা মন্ত্রীদের কি দাম এবং তারা কোথা থেকে এসেছেন। কয়েকজন প্রতিমন্ত্রী আছেন যাদের প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করেছেন বিরোধীদলের বিরুদ্ধে খেউর খিস্তি করার জন্যে। নিকট অতীতের মুখ খিস্তির করার কথা না হয় উল্লেখ করলামনা।

কিন্তু ক’দিন আগে খালেদা জিয়াকে তার ক্যান্টনমেন্টের বাড়ি থেকে উচ্ছেদের ব্যাপারে দেশবাসী একটা মেগা সিরিয়ালের নাটক দেখেছেন। সবচে বেশী নাটকীয়তা করেছেন আইএসপিআর কর্তৃপক্ষ। বহুদিন পর আমরা আইএসপিআর এর কার্যকলাপ দেখতে পেলাম। একেবারেই রাজনৈতিক ভূমিকায়। জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতার বিরুদ্ধে। একদিনের ভিতরই পরিচালক সাহেবকে কয়েকবার দেখা গিয়েছে।এর আগে আইএসপিআরকে এ ধরনের ভুমিকায় দেখা যায়নি। তত্‍কালীন পূর্ব পাকিস্তানকে আক্রমন করার পর ২৫শে মার্চ গভীর রাতে অবজারভার হাউজে আইএসপিআর এর দুই কর্তাকে দেখেছি মিথা্ নাটকে অভিনয় করতে। একজন ছিলেন ব্রিগেডিয়ার কাশেম ও অপরজন ছিলেন মেজর সালেক। আপনারা অনেকেই মেজর সালেককে চিনেন। ৭১ সালের পাকিস্তানী আক্রমন সম্পর্কে একটা বইও আছে। ১৬ ই ডিসেম্বরের পর ওই দুজন আইএসপিআর অফিসারকে আর দেখিনি। কিন্তু আমাদের এই  দুই অফিসারের সাথে  কখনও দেখা হলে  হয়ত বলবেন, দেখুন কি করবো সরকারী চাকুরী করি। কর্তার ইচ্ছায় কীর্তন করতে হয়। দু:খের বিযয় হলো আইএসপিআর এর চলমান ভুমিকায় এর ইমেজ দারুনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিডিআর বিদ্রোহে ৫৪/৫৭ জন সেনা কর্মকর্তা খুন হওয়ার পরও আইএসপিআর কোন কথাই বলেনি। কেন চুপ ছিল তার কোন ব্যাখ্যাও দেশবাসী পায়নি।

ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটার বিষয়টা কি রাজনৈতিক, না  প্রতিহিংসা না জমির মালিকানা বা টাইটেল সমস্যা ? এ বিষয়টা পরিস্কার হওয়া দরকার। হঠাত্‍ মন্ত্রী পরিষদ এই লীজ বাতিলের কাজে হাত দিলেন কেন? সরকারী জমি লীজ দেওয়ার পর বাতিলের নিয়ম কি? সেই নিয়ম কি সরকার অনুসরণ করেছে? এসব প্রশ্নের উত্তর কে দিবে? সরকার না আইএসপিআর? কোন অবস্থাতে খালেদা জিয়াকে এই বাড়িটা সেনা বাহিনী বা সরকার খালেদা জিয়াকে দিয়েছেন তা আমরা দেখেছি এবং ভুলে যাইনি। ১৯৮১ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়া শহীদ হওয়ার পর দেশের সাধারন মানুষের ভিতর কি প্রতিক্রিয়া হয়েছিল যারা দেখেছেন তাদের সবার মনে ও চোখে সেই দৃশ্য এখনও জীবন্ত। আওয়ামী লীগের বন্ধুরা হয়ত সেই দৃশ্য ভুলে থাকতে চান। কারন একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে তাঁর জানাজায় ২০ লাখ শরীক হবে কেউ তা কখনও ভাবেনি। না দেখলে বুঝা যেতনা এই মানুষটা এত জনপ্রিয় ছিল। ঠিক তেমনি একটি সময়ে জাতীয় সংসদ ও সরকার জিয়া পরিবারকে সাহায্য করার জন্যে ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটা দান করেন। আওয়ামী লীগ সহ সংসদের সকল দলের সদস্যদের সমর্থন লাভ করে সরকার ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের ওই প্রস্তাব। ওই প্রস্তাব আসার কারণ ছিল তখন ঢাকায় শহীদ জিয়ার পরিবারের থাকার জন্যে  কোন বাড়ি ছিলনা এবং ভরন পোষনের জন্যে কোন আয়ও ছিলনা। তাছাড়া ওই বাড়িটা বাংলাদেশের ন্যাশনাল হেরিটেজের একটা অংশ। শহীদ জিয়া ডেপুটি আর্মি চীফ হিসাবে ওই বাড়িতে থাকতে শুরু করেন। আর্মি চীফ এবং প্রেসিডেন্ট হিসাবে পুরো সময়টা তিনি ওই বাড়িতেই ছিলেন। পরবর্তী পর্যায়ে বেগম জিয়া প্রধান মন্ত্রী ও বিরোধী দলের নেত্রী হিসাবে এই বাড়িতেই অবস্থান করেছেন। লীজ দলিলে কি ভুল ছিল আর কি ভুল ছিলনা তা বড় কথা নয়। বিষয়টা হলো কি উদ্দেশ্যে কেন ওই বাড়ি জিয়া পরিবারকে দেয়া হয়েছিল।

শহীদ জিয়ার ভাংগা স্যুটকেস আর ছেঁড়া গেঞ্জীর কথা জিয়া পরিবারের কেউ প্রচার করেনি। আওয়ামী লীগই এর প্রধান প্রচারক। জিয়া সাহেব শহীদ হওয়ার পর টিভিতে এক প্রোগ্রামে মরহুম ফজলে লোহানীই প্রথম বিষয়টি জন সাধারনের কাছে উথাপন করেছিলেন। সেই থেকে আওয়ামী লীগ এর প্রধান প্রচারক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। প্রায়ই সুযোগ পেলেই আওয়ামী লীগ ভাংগা স্যুটকেশ ও ছেঁড়া গেঞ্জীর কথা প্রচার করে। এখন জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কেন আওয়ামী লীগ এ কাজটা করে। বিষয়টা হয়ত মনস্তাত্বিকও হতে পারে। আওয়ামী লীগ হয়ত মনে করে ভাংগা স্যুটকেশ আর ছেঁড়া গেঞ্জী তাদেরই হওয়া উচিত ছিল। কারন বংগবন্ধু ছিলেন গণমানুষের নেতা। তিনিই সাধারন মানুষের জন্যে রাজনীতি করতেন।তারঁ তেমন কোন অর্থ-বিত্ত ছিলনা। আমরা শুনেছি, বংগবন্ধুর ঘনিস্ঠ বন্ধু ছিলেন পাকিস্তানের হারুণ পরিবার ও বাংলাদেশের ইস্পাহানী পরিবার। তারাই তাঁর খোঁজ খবর রাখতেন। সুখ দু:খের ভাগীদার ও সমব্যাথী ছিলেন। তিনি এক সময় টি বোর্ডের চেয়ারম্যান হয়েছিলেন ইস্পাহানীদের সুপারিশে। কিছুদিন আলফা ইন্স্যুরেন্সের উপদেস্টাও ছিলেন। তিনি যুক্তফ্রন্ট সরকারের দুর্ণীতি দমন মন্ত্রীও ছিলেন। সে সময়ে বংগবন্ধুর বিরুদ্ধে নানা রকম দুর্ণীতির অভিযোগ উঠেছিল। যা প্রমানিত হয়নি এবং জনসাধারনও তেমন বিশ্বাস করেনি। ওই সময়েই বংগবন্ধু তাঁর ধানমন্ডীর বাড়িটি তৈরী করেছিলেন। বংগবন্ধু যাঁর শিষ্য ছিলেন সেই  মানুষটি  ছিলেন নির্যাতিত গণমানুষের নেতা মাওলানা ভাসানী। তাঁর ঢাকায় কোন বাড়ি ছিলনা। তিনি থাকতেন সন্তোষে।চলতেন জন সাধারনের পয়সায়। তাই হয়ত আওয়ামী লীগের কল্পনায় ছিল বংগবন্ধু শহীদ হওয়ার পর  তাঁর বাড়িতেই ভাংগা স্যুটকেস ও ছেঁড়া গেঞ্জী পাওয়া যাবে। কিন্তু তা হয়নি। কারণ আল্লাহপাকের ইচ্ছা ছিল অন্য রকম। কি কি জিনিষ পাওয়া গেছে তার তালিকা  পাঠক সমাজের নিশ্চয়ই মনে আছে।এসব কথা আমি আমার স্মৃতি থেকে বলছি। স্মৃতি কোন লাইব্রেরী নয়।আমার ভুলও হতে পারে। এ জগত ছেড়ে চলে যাবার পর জিয়া সাহেবের বাড়িতে কি পাওয়া গেছে তাও দেশবাসী জানেন। সে সময়ে দেশবাসীর ইমোশন ও সেন্টিমেন্টের প্রতি সম্মান দেখিয়ে বিচারপতি সাত্তার সাহেবের সরকার জিয়া সাহেবের পরিবারকে ওই দুটি বাড়ি দান করেছিলেন। বড়ই পরিতাপের বিষয় আজ আওয়ামী সরকার সবকিছু ভুলে গিয়ে খালেদা জিয়াকে ঐতিহাসিক সেই বাড়ি উচ্ছেদ করেছে। এতে আওয়ামী লীগের হীনমন্যতারই প্রকাশ পেয়েছে।

আওয়ামী নেতা ও সরকারের মন্ত্রীরা খালেদা জিয়াকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের পর যেসব কথা বলেছেন তাতে তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সুস্পস্ট হয়ে উঠেছে। তারা প্রায় সবাই বলেছেন খালেদাকে উচ্ছেদের মাধ্যমে তারা ক্যান্টনমেন্টকে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র মুক্ত করা হয়েছে। প্রশ্ন উঠতে পারে খালেদা জিয়া ওই বাড়িতে বসে কার সাথে যড়যন্ত্র করতেন এবং সেটা কি ধরনের যড়যন্ত্র। আওয়ামী লীগ কি মনে করে বা ইংগিত করছে সেনাবাহিনী যড়যন্ত্রের সাথে জড়িত? অথবা আওয়ামী লীগ গোয়েন্দা সূত্রে জানতে পেরেছে সেনাবাহিনীর সাথে খালেদা জিয়ার কোন ধরনের রাজনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে? বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাথে আওয়ামী লীগের হৃদ্যতা কখনও ছিলনা। বংগবন্ধুর আমলেই সেনাবাহিনীর সাথে আওয়ামী লীগের সুসম্পর্ক ছিলনা রক্ষীবাহিনীর কারনে। জন সাধারনের ভিতর এ রকম একটা ধারনা রয়েছে। যেকোন কারনেই হোক বংগবন্ধুর কাছে রক্ষীবাহিনীর গুরুত্ব অনেক বেশী ছিল। চলমান আওয়ামী নেতৃত্ব মনে করে সেনা বাহিনী খালেদা জিয়াকে অধিক সম্মান করে। সেজন্যে তারা সব সময় বলে আসছেন বিএনপির জন্ম ক্যান্টনমেন্টে। এর সাথে জনগনের কোন সম্পর্ক নেই। আওয়ামী নেতারা ইতোমধ্যেই বলেছেন ভাংগা স্যুটকেসের গল্পের মতো আরেকটি গল্প তৈরী করেছেন। সেটা হলো তাঁকে জোর করে মইনুল হোসেন রোডের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। এবং খালেদা জিয়ার কান্নাকাটিও ছিল এক ধরনের নাটক। কিন্তু যেদিন খালেদা জিয়াকে ওই বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে সেদিন আইনমন্ত্রী বলেছেন সরকার এ ব্যাপারে কিছুই জানেনা। বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার পর মন্ত্রীরা বলেছেন আদালত যদি তাঁর পক্ষে দেন তাহলে তিনি বাড়ি ফেরত পাবেন। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন আসে আদালতের সিদ্ধান্তের অপেক্ষা না করে তাড়াহুড়া করে কেন উচ্ছেদ করা হলো।

উচ্ছেদ নাটকে গত কয়েকদিনে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। প্রধান বিচারপতির সরকারী বাস ভবনের দেয়ালের ভিতরে নাকি দুটি ককটেল বা জর্দার কৌটো ফুটেছে। প্রধান বিচারপতির বাসভবন কোথায় তা নগরবাসী প্রায় সবাই জানেন। ওই বাড়ির চারিদিকেই সারাদিন জমজমাট পুলিশ পাহারা থাকে। চারিদিকেই ট্রাফিক পুলিশ থাকে। যারা কথিত ককটেল দেয়ালের ভিতর ফেলে তারা পালালো কি ভাবে? কর্তব্যরত পুলিশ ককটেল ফুটার আওয়াজ পাওয়ার সাথে কি করলেন? পুরো বিষয়টা নিয়ে প্রধান বিচারপতি এখনও কোন কথা বলেননি। তিনি কি তখন বাসায় ছিলেন? আওয়াজ পেয়ে তাঁর বাসার সদস্যরা কি করলেন? আওয়াজ পাওয়ার সাথে সাথে তাঁরা কি পুলিশের সাথে যোগাযোগ করেছেন? অথচ  সরকারী বক্তব্য অনুযায়ী পুরো বিষয়টাও ঘটেছে নাকি খালেদা জিয়াকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ আর ২৯ শে নবেম্বর  বাড়ির বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের শুনানীকে কেন্দ্র করে। এখন ককটেল ফুটানো কেন্দ্র করে নানাকথার সৃস্টি হচ্ছে। বলা যায় ককটেল রাজনীতি। সরকার এবং আওয়ামী নেতাদের ধন্যবাদ দিতে হয় নতুন নতুন ইস্যু দিয়ে বিরোধী দলকে ব্যস্ত রাখার জন্যে।এখন চলছে বাড়ি নিয়ে রাজনীতি আর তার সাথে প্রধান বিচারপতির বাড়িতে ককটেল। বিএনপির মহাসচিব জানতে চেয়েছেন সুধা সদনে কি আছে তা জানার অধিকার জনগণের আছে। এমন কি সেই বাড়িটার মালিক কে এবং মালিক কি ভাবে ওই বাড়িটা পেয়েছেন এসব প্রশ্নও আসতে শুরু করেছে।(ershadmz40@yahoo.com) নয়া দিগন্ত , ডিসেম্বর ২, ২০১০

Read Full Post »

বায়া দলিল ৯


ইভটিজিং একটি ইংরেজী শব্দ। ইভ এবং টিজ শব্দ দুটিকে এক করে এটি তৈরি করা হয়েছে। ইভ ইংরেজী শব্দ। টিজিংও ইংরেজী। ইভ মানে নারী। টিজিং মানে উত্যক্ত করা। ইংরেজী অভিধানে ইভের মানে করা হয়েছে প্রথম নারী। আরবীতে হাওয়া আর হিব্রুতে হাব্বাহ। ভারতে প্রথম নারীর নাম সম্ভবত উমা। উমা শব্দের সাথে আরবী উম বা উম্মু শব্দের সাথে মিল রয়েছে। হাওয়াকে নারী জাতির মা মনে করা হয়। তৌরাত বা ওল্ড টেস্টামেন্টের মতে ইডেন গার্ডেনে বেহেশত বা জান্নাতে মানব জাতির পিতা আদম বা এ্যাডাম বিবি হাওয়াকে নিষিদ্ধ ফল খাওয়ার জন্যে উত্যক্ত করেছিলেন। জান্নতের ওই ঘটনাকে ইংরেজীতে ইভ টিজিং বলা হয়েছে। ইংরেজী ভাষার কারণে শব্দ দুটি আমাদের সমাজে এখনও প্রচলিত রয়েছে। যেমন এক সময় প্রচলিত ছিল এপ্রিল ফুল। কয়েকশ’ বছর পর আমরা জানতে পারলাম ওই দিনটি ছিল স্পেনের মুসলমানদের বোকা বানাবার দিন। আর আমরা না জেনেই হাসি তামাসার জন্যে দিনটি পালন করতাম। এখন ওই দিনটির কথা তেমন শুনা যায়না। যেমন আরবী জাবালুত তারিক শব্দটা হয়ে গেছে জিব্রাল্টার। এ রকম আরও বহু শব্দের কথা আপনাদের বলতে পারবো। কিন্তু এই কলামের জন্যে তেমন জায়গা বা স্পেস বরাদ্দ নেই। শুরু করেছি ইভ টিজিং নিয়ে কিছু কথা বলার জন্যে।মূলত শব্দটা এসেছে পশ্চিমা জগত থেকে। তারা হাওয়াকে ইংরেজীতে ইভ বানিয়েছে। এখন সকল নারীর জন্যেই শব্দটা ব্যবহার করে। এই ব্যবহার ঠিক নয়। কারণ মানব জাতির পিতা বা মাতা একজনই। এ্যাডাম এ্যন্ড ইভ। আরবীতে আদম ও হাওয়া। আমরা বাংলাতেও তাই ব্যবহার করি। নারী বলতে আমরা ওমেন। বালিকা বলতে গার্ল বলে থাকি। সুতরাং সকল নারীকে ইভ বলা যাবেনা। কিন্তু কি করবেন ইংরেজীতে এভাবেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

তৌরাত ইন্জিল বা বেদ-উপনিষদের যুগে নারীর কোন মর্যাদা ছিলনা। সোজা কথায় বলা যায় নারীরা ছিল পুরুষের দাস। ইসলামের মাধ্যমেই নারী জাতির মুক্তির সনদ ঘোষিত হয়েছে। আল্লাহপাকের রাসুল মহানবী মোহাম্মদ মোস্তাফা(সা:) বলেছেন মায়ের মর্যাদা পিতার চেয়ে তিনগুন বেশী। ইমামুল মোরসালিন মহানবী(সা;) আরও বলেছেন, যিনি তার স্ত্রীর সাথে বিনয়ে ব্যবহার করেন তিনিই ভদ্রলোক। তৌরাতে বর্ণিত ইভ টিজিংয়ের বক্তব্য পবিত্র কোরাণ প্রত্যাখ্যান করেছে। কোরাণ বলছে অভিশপ্ত শয়তান বা ইবলিশ মানব জাতির পিতা ও মাতাকে ক্ষণিকের জন্যে বিভ্রান্ত করে ফেলেছিলেন।ফলে তাঁরা না বুঝে আল্লাহপাকের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেছেন। পরে তাঁরা অনুতপ্ত হওয়ায় আল্লাহপাক তাদের ক্ষমা করে দেন। পবিত্র কোরাণ বলছে হজরত আদমকে(আ:) আল্লাহপাক সৃস্টিই করেছেন দুনিয়াতে তাঁর খলিফা নিয়োগের জন্যে। তিনিই মানব জাতির প্রথম পিতা ও নবী। সুতরাং কোন নবী আল্লাহপাকের নির্দেশ ইচ্ছাকৃত ভংগ করতে পারেন না। বাইবেল বলছে ইভ এ্যাডামকে প্ররোচিত করেছেন। এ ধারণাটাও সঠিক নয়। কারণ আল্লাহপাক হজরত আদমকে নবী করেই জগতে পাঠিয়েছেন তাঁর ইচ্ছাকে বাস্তবায়ন করার জন্যে। তিনিই হজরত আদমকে সহীফা দিয়েছেন জীবন যাপনের পদ্ধতি শিখিয়ে। মনুকে ভারতীয় শাস্ত্রে প্রথম মানব বা পিতা হিসাবে মনে কড়া হয়। মনু স্মৃতি বা সংহিতায় নারী আর শূদ্রের কোন মানবিক মর্যাদা নেই।

বাংলাদেশে অতি সাম্প্রতিক মিডিয়া বিষয়টাকে বেশ রসালো করে প্রকাশ করছে। জানিনা এর পেছনে দৃশ্য অদৃশ্য কার কি উদ্দেশ্য আছে। কিন্তু বিষয়টা নিয়ে বেশ তোলপাড় হচ্ছে। সরকার নতুন আইন বানাবার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন। এর আগে এ ধরনের বহু আইন হয়েছে। কিন্তু সমাজের তেমন কোন উন্নতি হয়নি। কারণ বিষয়টা সমাজের মরালিটি বা নৈতিকতার প্রশ্ন।চলমান বিশ্বে মানুষে নৈতিকতার মান প্রায় শূণ্যের কোঠায় নেমে গেছে। অনৈতিকতার জোয়ার প্রথমে শুরু হয়েছে প্রথমে পশ্চিমা জগতে। এজন্যে এক সময়ে পশ্চিমে ‘মরাল রিআর্মামেন্ট’ আন্দোলন শুরু হয়েছিল। কিন্তু কিছু হয়নি। পশ্চিমের পরিবার গুলো বহু আগেই ভেংগে গেছে। সেখানে বাপের পরিচয় থাকেনা, মায়ের পরিচয় থাকেনা। কুমারী মায়ের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সেখানে নারীতে নারীতে বিয়ে হচ্ছে। পুরুষে পুরুষে বিয়ে হচ্ছে। এসব নাকি ব্যক্তি স্বাধীনতার বিষয়। ওখানে মেয়েদের বিরক্ত বা উত্যক্ত করতে হয়না। ওরাতো ছেলে বন্ধুদের কাছে সদা উপস্থিত।

আমাদের মেয়েরাতো স্কুল কলেজ মক্তবে আসা যাওয়া করছে বিগত একশ’ বছর ধরে। শুরুতে মেয়েদের উপস্থিতি খুবই কম ছিল। আস্তে আস্তে নারী শিক্ষার গুরুত্ব সমাজ উপলব্দি করে। বাড়িতে মেয়েদের ধর্মশিক্ষার বয়সও দুশো বছরের মতো। কিন্তু নারী পুরুষের শিক্ষাকে অবশ্য কর্তব্য বলে ঘোষণা করেছে আল কোরাণ দেড হাজার বছর আগে। আমাদের এ দেশে তা বাস্তবায়িত হয়নি সনাতন ধর্মের কারণে। সনাতন বিশ্বাস মতে নারী আর শূদ্রের সমাজিক অবস্থান ছিল পশুর মতো। ফলে নারীদের মানুষ হিসাবে ভাবতে শত শত বছর পার হয়ে গেছে। ইসলামের প্রভাবে এখন সর্বত্রই নারী শিক্ষা বাধ্যতামূলক। এক সময় নারী পুরুষের পড়ালেখা আলাদা ছিল। এখনও সারা দেশে প্রচুর স্কুল কলেজ রয়েছে মেয়েদের জন্যে আলাদা। কো-এডুকেশন চালু হয়েছে অতি সাম্প্রতিক কালে।মেয়েদের প্রতি ছেলেদের আকৃস্ট হওয়া অন্যায় বা নতুন কিছু নয়। দুইতিন যগ আগেও ছেলে মেয়েরা শালীনতা বজায় রেখে সম্পর্ক রাখতো। শালীনতার সেই পর্দা আস্তে আস্তে খসে পড়েছে। এখন ছেলেমেয়েদের কারোরই পোষাক বা আচার ব্যবহারের ঠিক নেই। মোবাইলের কারণে ছেলে মেয়েরা মা বাবাকে মিথ্যা কথা বলে অনেক রাত পর্যন্ত বাইরে থাকে।মোবাইলে বন্ধুর অশালীন ছবি তোলে। বনিবনা না হলে তা ছড়িয়ে দেয়। প্রেম নিবেদন করে প্রত্যাখ্যাত হলে এসিড নিক্ষেপ করে। কোন কোন ক্ষেত্রে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে ও পরে হত্যা করে। আমরা এসবকে ইভটিজিং বলছি। শুধু ছেলে মেয়েদের দায়ী করে আইন করলে চলবেনা। এটাতো সমাজেরই অবক্ষয়।ershadmz40@yahoo.com  ( Amardesh, November 28,2010 )

Read Full Post »


আইনের দৃস্টিতে একদিন লগি বৈঠাও কি অস্ত্র হিসাবে গন্য হবে?

আমাদের প্রধানমন্ত্রী বেগম হাসিনা ওয়াজেদকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। রাজনীতিতে তিনি বিখ্যাত হয়ে আছেন। সমকালের বাংলাদেশের ইতিহাস লিখতে গেলেই তাঁর নাম আসবেই।এখন দেখছি ভাষার ইতিহাসেও তাঁর নাম নথিভুক্ত হবে। যেমন ঘেরাও বন্দ হরতাল মিছিল শব্দগুলো এখন ইংরেজী অভিধানেও পাওয়া যায়। আইউব বিরোধী আন্দোলনের মাওলানা ভাসানী ঘেরাও শব্দটিকে জনপ্রিয় করেছেন। লগি বৈঠা শব্দ দুটি আমরা এতদিন নৌকার সরন্জাম হিসাবে জেনে এসেছি। এখন শব্দ দুটি রাজনৈতিক শব্দ হিসাবে ব্যবহৃত হতে শুরু করেছে। আমাদের দেশের আইনে লাঠিকে অস্ত্র হিসাবে গন্য করা হয়। কারন লাঠি ব্যবহার করে যে কোন কাউকে আঘাত করা যায়। এমন কি হত্যাও করা যায়। আমাদের দেশের রাজনীতিতে বেগম হাসিনা ওয়াজেদই প্রথম লগি বৈঠা ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি হয়ত মনে করেছেন লগি বৈঠাকে আইন এখনও অস্ত্র মনে করেনা। তাই তিনি তাঁর কর্মীদের ২৮শে অক্টোবর লগি বৈঠা ব্যবহার করতে বলেছিলেন।এটা দিয়ে যে মানুষ হত্যা করা যায় একথা নিশ্চয়ই ভাবতে পারেননি। ২৮শে অক্টোবরও পুলিশও লগি বৈঠাকে অস্ত্র মনে করেনি বলে নিষিদ্ধ করেনি। নাটোরের উপজেলা চেয়ারম্যান বাবুকে লগি বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করার পরও লগি বৈঠাকে অস্ত্র হিসাবে ঘোষণা করা হয়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হয়ত বলবেন লগি বৈঠাতো নৌকারই অংশ। নৌকা রাস্তায় বা পানিতে চালাতে গেলেতো লগি বৈঠা লাগবে। আওয়ামী কর্মীরাও হয়ত ভাবছে লগি বৈঠা যেহেতু কোন অস্ত্র নয় তাহলে এটা ব্যবহার করতে আপত্তি কোথায়? তাছাড়া নেত্রীতো বলেই দিয়েছেন লগি বৈঠা ব্যবহার করতে।

২৮শে অক্টোবর পল্টনে যে নারকীয় হত্যাকান্ড ঘটেছে তার ভিডিও দেখলে এখনও যেকোন সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়বে। এই ভিডিও চিত্র যখন সারা পৃথিবীর টিভি দেখিয়েছে তখন আমাদের রাজনীতি নিয়ে বিশ্ববাসীর একটা ধারনা তৈরী হয়েছে। ফিলিস্তিনীদের উপর ইজরাইলীদের অত্যাচার, ইরাক ও আফগানিস্তানে আমেরিকার অত্যাচার, কাশ্মীরে ভারতের অত্যাচারকেও ম্লান করে দিয়েছে। আমরা আবু গারীব ও গুয়ান্তানামো কারাগারের অত্যাচারের ভিডিও চিত্র দেখেছি। ওসব ছিল তথাকথিত সভ্যতার মোড়কে লুকানো গোপন অত্যাচার। পল্টনের অত্যাচার ছিল দিনে দুপুরে হা্জার হাজার মানুষের সামনে পিটিয়ে হত্যা করা। মৃতদেহের উপর উল্লাসে নৃত্য করা। সবকিছুই হয়েছে সরকারের সামনে। কিন্তু সরকার তখন কিছুই বলেনি। আজও বলছেনা। তবুও আমরা শুনি  ন্যায় বিচার, আইন আদালত শব্দ গুলো। ১/১১র সরকার এর বিচার করেনি, এমন কি কোন উদ্যোগও নেয়নি। কারন তারাতো সেই ঘটনার সুযোগ নিয়েই ক্ষমতায় এসেছে। সেই সময়ে আমরা আরও শুনেছি বংগভবনে আলো বাতাস পানি সব বন্ধ করে দেয়া হবে। এসব নাকি গনতান্ত্রিক ভাষা। তখনি আওয়ামী নেত্রী বলেছিলেন ১/১১র সরকার আমাদের আন্দোলনের সরকার। কোন আন্দোলন? লগি বৈঠার আন্দোলন। বর্তমানে বাংলা একাডেমীর অভিধানে লগি বৈঠার যে অর্থ আছে তাতে নতুন মানে সংযোজিত হবে। এমন কি গুগুল বা উইকিপিডিয়াতে বেগম হাসিনা ওয়াজেদের জীবনীতেও এই ইতিহাস সন্নিবেশিত হতে পারে।

রাজনীতি ও ধর্মের কারণে হানাহানি ও দাংগার ইতিহাস বহু পুরাণো। আমাদের এ অঞ্চলে ভারত ও পাকিস্তানে নানা ধরনের দাংগা লেগেই আছে। পাকিস্তানে শিয়া-সুন্নী- কাদিয়ানী দাংগা প্রায়ই লেগে থাকে। প্রগতিশীল ও স্যেকুলার নামে বহুল প্রচারিত ভারতে প্রতি বছর দাংগা হয়। কখনও হিন্দু মুসলমানে,কখনও শিবসেনা ও অন্যরা আবার কখনও হরিজন ও অন্যরা। বাংলাদেশে তেমন দাংগা নাই বললেই চলে। শৈলেশকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দাংগার ইতিহাস বইতে লিখেছেন সমাজ ও সরকারের ভেদনীতির ফলে ভারতে প্রতি বছর ১৫০ থেকে ৫০০ দাংগা হয়।ভারতে দাংগা কোন বিষয় নয়। এদেশে নানা অজুহাতে শিবসেনা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ দাংগা লাগাবার ফিকিরে থাকে। গুজরাতের দাংগার কথা স্মরণ করুন। সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নরেন মোদী দাংগা বাধিয়েছে এটা এখন সবাই জানে। ১৪৯২ সালের ক্রুসেড যুদ্ধের কথা নিশ্চয়ই আপনাদের কথা মনে আছে। মুসলমান নিধনের জন্যে রাস্ট্রই উদ্যোগ নিয়েছিল। এই যুদ্ধ চলেছে প্রায় ২শ’ বছর।

শুরু করেছিলাম রাজনীতিতে লগি বৈঠার ব্যবহার ও প্রচলন নিয়ে। ‘ অল ক্রেডিট গোজ টু আওয়ার প্রাইম মিনিস্টার’। তিনি এর আবিস্কারক ও প্রচলনকারী। গাঁধীজীর অহিংস আন্দোলনের কথা মনে পড়ছে। দু:খের বিষয় হলো গাঁধীজীর ভক্তরা অহিংস থাকতে পারেনি। তাঁর চোখের সামনেই ভক্তরা দাংগা করেছেন, মানুষ হত্যা করেছে। তাঁরই ভক্তরা তাঁকে হত্যা করেছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর ভক্তরা লগি বৈঠার শান্তিপূর্ণ ব্যবহার করতে পারেননি। তারা লগি আর বৈঠাকে অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করেছে। আপনাদের একটু পেছনের দিকে তাকাতে বলবো। ১৯৫৪ সালে  প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে মহাজোট গঠণ করেছিলেন মাওলানা ভাসানী, শেরে বাংলা ও সোহরাওয়ার্দী। সেই জোটের নাম ছিল যুক্তফ্রন্ট। মার্কা ছিল নৌকা। কিন্তু আওয়ামী লীগের কারনে যুক্তফ্রন্ট বেশীদিন শান্তিপূর্ণ ভাবে কাজ করতে পারেনি। ওই সময়েই পরিষদের স্পীকার শাহেদ আলি সাহেবকে  ফোল্ডিংয়ে চেয়ার দিয়ে পিটিয়ে মারা হয়েছে। কারা এ কাজ করেছেন তা অনেকেই জানেন। শরিক দলগুলোকে কোন পাত্তা না দিয়ে আওয়ামী লীগ প্রদেশে ও কেন্দ্রে সরকার গঠণ করে। সেই সময়েই পূর্ব পাকিস্তানে ৯২ক ধারা জারী করে কেন্দ্রীয় শাসন চাপিয়ে দেয়া হয়। শেষ পর্যন্ত ১৯৫৮ সালে আইউব খান সামরিক শাসন জারী করে সারা পাকিস্তানের রাজনীতিকদের গ্রেফতার করে। এর আগে ১৯৫৭ সালে রূপমহল সিনেমা হলে আওয়ামী লীগের কর্মী সম্মেলনে দলের সভাপতি মাওলানা ভাসানীর সাথে দেশের বিদেশনীতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী সোহরাওয়ার্ধীর মতবিরোধ দেখা দিলে মাওলানা সাহেব আওয়ামী লীগ ত্যাগ করে ন্যাপ গঠণ করেন। পাকিস্তানের বিদেশনীতির প্রশ্নেই সোহরাওয়ার্দী সাহেব জিরো+জিরো থিওরী দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন পাকিস্তানের সাথে পাকিস্তানকে থাকতেই হবে। অন্যের সাথে বন্ধুত্ব মানে জিরো+জিরো। মাওলানা সাহেব এ নীতির বিরোধিতা করেছে। রূপমহল সিনেমার সম্মেলনের পর আওয়ামী লীগ সাম্রাজ্যবাদ আমেরিকার লেজুড়ে পরিণত হয়। সেই থেকে আওয়ামী লীগ সমাজতন্ত্র বিরোধী একটি রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়। নতুন দল গঠণ করে মাওলানা সাহেব পল্টনে জনসভা ডাকলে আওয়ামী লীগ লাঠি নিয়ে সে সভা ভেংগে দিয়েছিল। তকন লগি বৈঠা ছিলনা। ছিল শুধু কাঠের চেলি। শুধু একবার ভাবুন, যে মানুষটা মাত্র ক’দিন আগেও দলের সভাপতি ছিলেন তারই সভা ভাংগার জন্যে কর্মীদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছিল। ৬৯ এর গণ আন্দোলন করে এই মাওলানা ভাসানী শেখ সাহেবকে আগরতলা মামলা থেকে মুক্ত করেছিলেন। মাওলানা সাহেবই আওয়ামী লীগের প্রতিস্ঠাতা। তিনি এদেশের রাজনীতিকে গন মানুষের নিয়ে গিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগের প্রতিস্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ছিলেন শামসুল হক সাহেব। এখন আওয়ামী লীগ তাঁকে চিনে কিনা আমাদের সন্দেহ আছে। সম্ভবত ৭০ সালে পল্টনে মওদুদী সভা ভেংগে দিয়েছিল আওয়ামী লীগ শুধু লাঠি বা কাঠের চেলি দিয়ে।

মোনায়েম খাঁর আমলে চাত্র রাজনীতিতে এনএসএফ নামক একটি ছাত্র সংগঠনের জন্ম হয়। এই ছাত্র সংগঠনের কাজ ছিল সরকার বিরোধী সকল ছাত্র সংগঠনকে ঠেংগানো। এই এনএসএফই ছাত্র রাজনীতিতে মারা মারির জন্যে হকি স্টিক সাইকেন চেইন সাপ ইত্যাদি আমদানী করে। আইউব আর মোনায়েম খাঁর বিদায়ের পর এনএসএফও ছাত্র রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছে। ৭০ সাল পর্যন্ত এই দেশের রাজনীতিতে লাঠি কাঠের চেলি ব্যবহৃত হয়েছে। ৭০ এর শেষের দিকে মলোটভ ককটেলের নাম শুনা গেছে।  রাজনীতিতে পঁচা ডিম আর জুতার ব্যবহার বৃটিশ আমলেই চালু হয়েছে। শুনেছি শেরে বাংলা বলেছিলেন রাজনীতিতে ফুলের মালা আর জুতার মালা দুটোই থাকে। আওয়ামী মুসলীম গঠনের পর মাওলানা সাহেব যখন সারা দেশ সফর করছিলেন তখন সরকারী দল মুসলীম লীগ ও তার পান্ডারা সভা ভাংগার জন্যে লাঠি জুতা ব্যবহার করতো। শুনেছি মাওলানা সাহেব সরকারের বিরুদ্ধে তাঁর প্রথম জনসাভা করেছিলেন আরমানীটোলা মাঠে। সরকারী গুন্ডা ও পুলিশের ভয়ে প্রথম দিকে মানূষ সরাসরি মাঠে আসেনি। মাঠের চারিদিকে দাঁড়িয়ে দেখছিলো শেষ পর্যন্ত কি হয়। তখনকার বিখ্যাত পঞ্চায়েত নেতা কাদের সর্দার সাহেব নাকি মাওলানা সাহেবকে সমর্থন দিয়ে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।ফলে মুসলিম লীগের গুন্ডারা কিছু করতে সাহস করেনি। রাজনীতিতে জুতার ব্যবহার ইদানিং বেশ দেখা যাচ্ছে। সারা বিশ্বে আলোড়ন সৃস্টি করেছিল বুশকে লক্ষ্য করে ইরাকী সাংবাদিকের জুতা নিক্ষেপ। এর পরে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় জুতা প্রতিবাদের ভাষায় পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর জুতা পঁচা ডিম লাঠি ব্যবহার করা লোকে ভুলে গেছে। এখন পিস্তল রাইফেল ভোজালি বোমা গ্রেনেড ছুরির ব্যবহার নিত্যদিনের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। রাজনীতি ছাড়াও চুরি ডাকাতি জমি দখল ও প্রেমিকাকে ঘায়েল করার জন্যে অস্ত্রের ব্যবহার শুরু হয়ে গেছে। এসিড নিক্ষেপও চলছে। শুনেছি মাঝে সাঝে একে৪৭ নামক ভয়ংকর অস্ত্রও  দেখা যাচ্ছে। ৭২ সালেই বংগবন্ধুর আমলে বিশ্ববিদ্যালয়ে আধুনিক অস্ত্র দিয়ে সাতজন ছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। সেই যে শুরু হয়েছে তা আজও থামেনি। থামার কোন লক্ষন দেখতে পাচ্ছিনা। এখন মিছিলে নানা ধরনের অস্ত্র দেখা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররা অস্ত্র নিয়ে ঘুরাফিরা করছে। এমনি একটি সময়ে আওয়ামী নেত্রী লগি বৈঠাকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান করেছেন। এখন সারা দেশে যে কোন দলের কর্মীরা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্যে এ অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে। অবশ্য আওয়ামী নেত্রী বলতে পারেন লগি বৈঠায় একমাত্র আওয়ামী লীগের অধিকার রয়েছে। পুলিশও বলতে পারে লগি বৈঠা আর কেউ ব্যবহার করতে পারবেনা।

২৮শে অক্টোবরের ঘটনা সম্পর্কে সম্প্রতি যুবলীগ নেতা আজম এমপি ওই দিনের সফল অপারেশনের জন্যে তাঁর কর্মী বা্হিনীকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। তিনি বলেছে সেদিন যুবলীগকে ধ্বংস করার পরিকল্পনা করেছিল জামাতের কর্মীরা। কিন্তু তাদের সেই পরিকল্পনাকে সফল ভাবে প্রতিহত করে যুবলীগকে রক্ষা করেছে। এখন বিষয়টা পরিস্কার হয়ে গেছে কেন সরকার সেইদিনের হত্যাকান্ডের বিচারের জন্য আগ্রহী হয়নি। এমন কি ধোয়া তুলসীপাতা মঈনুদ্দিন-ফখরুদ্দিনের সরকারও কোন উদ্যোগ নেয়নি।

ershadmz40@yahoo.com

Read Full Post »


কাশ্মীরকে ভারতের অংশ বলে কেউ ভাবেনা

ভারতের প্রখ্যাত লেখিকা ও মানবাধিকার কর্মী অরুন্ধতী রায় বলেছেন, কাশ্মীর কখনই ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলনা। একথা বলার জন্যে ভারত সরকার তার বিরুদ্ধে রাস্ট্রদ্রোহিতার মামলা রুজু করার জন্যে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। অরুন্ধতী রায় বলেছেন, তিনি কোন মিথ্যা বলেননি। তিনি বলেছেন বিষয়টা অনেক পুরোণো। কাশ্মীরী নেতা গিলানী বলেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে ৯০টি মামলা হয়েছে। আরেকটি মামলা হলে ৯১টি হবে। এতে তিনি বিচলিত নন। বাদশাহ জাহাংগীর কাশ্মীর সফরে যেয়ে বলেছিলেন, জগতে কোথাও স্বর্গ থাকলে তা এখানেই এখানেই। সেই কাশ্মীর এখন নরকে পরিণত হয়েছে। বিগত ৬০ বছর ধরে সেখানে চলছে রাস্ট্রীয় নিধনযজ্ঞ। কে বাঁচাবে কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামী নিরীহ মানুষকে।

আজ কাশ্মীরের এ অবস্থা কেন আমাদের অনেকেই জানেনা। পাকিস্তান আমলে আমরা রাস্ট্রীয় ও সামাজিক ভাবেই ছিলাম কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামী জনগণের সাথে। এখন শুধু জনগনই কাশ্মীরের জনগনকে সমর্থন করে। রাস্ট্রীয়ভাবে বাংলাদেশ সরকারের ভুমিকা এখনও পরিস্কার নয়। যদি কখনও কোন কাশ্মীরী নেতা আমাদের এখানে আসে বা আশ্রয় নেয় তাহলে তার ভাগ্যে কি আছে তা আমরা জানিনা। ভারতের পূর্বাঞ্চলের স্বাধীনতাকামী নেতারা এখানে এসে কি ধরনের ভাগ্য বরন করেছে আমরা সবাই তা জানি। বাংলাদেশের সরকার গুলোর নানা ধরনের নীতি আছে। ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামীদের আমরা সমর্থন করি। সাহায্য সহানুভুতি দেখাই। ঢাকায় ফিলিস্তিনী রাস্ট্রদূতের অফিস রয়েছে।কিন্তু কাশ্মীরের ব্যাপারে  বাংলাদেশ সরকার ভারত সরকারের নীতিকে সমর্থন করে। কাশ্মীরের বর্তমান অবস্থায় বিশ্বনেতা আমেরিকাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। চলমান অবস্থাকে দেখার জন্যে সেখানে গিয়েছিলেন মানবাধিকার কর্মী অরুন্ধুতী রায়।তখনি তিনি বলেছেন , কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ নয়।

আজ আমরা বা বিশ্ববাসী  যে ভারতকে দেখতে পাচ্ছি তা কখনও এ রকম ছিলনা।মহাভারতে বর্ণিত কম্বোজকে এখনকার কাশ্মীর বলে অভিহিত করেছেন ঐতিহাসিকরা। প্রাক মোগল যুগে  ভারত ছিল বিভিন্ন রাজ্যে বিভক্ত। ছোট ছোট কয়েকশ’ রাজ্য  ছিল। রাজা মহারাজারা এসব রাজ্যের মালিক ছিলেন। রামায়ন মহাভারত মহাকাব্য পড়লেও দেখা যাবে ঐ যুগেও বহু রাজা মহারাজা ছিলেন। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ ছিল বহু রাজার যুদ্ধ।মোঘলরাই ভারতকে একটি দেশে পরিণত করেছে। কাশ্মীর আজকের ভারতের অংশে পরিণত হয়েছে ৪৮ সালে মহারাজা হরি সিংয়ের বেঈমানীর কারণে। অমৃতস্বর ট্রিটির মাধ্যমে ১৮৮৪ সালে ডোগরা মহরাজা রণজিত সিং কাশ্মীরের দখল গ্রহণ করে। ডোগরা মহারাজারা ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত কাশ্মীর দখলে রাখে। সর্বশেষ মহারাজা হরিসিং লর্ড মাউন্টবেটনের উসকানীতে ও অর্থের বিনিময়ে  কাশ্মীরী জগনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে  ভারতের সাথে থাকার জন্যে চুক্তি স্বাক্ষর করে। সেই থেকেই কাশ্মীর ভারতীয় সেনাবাহিনীর দখলে রয়েছে। হরিসিংয়ের অন্যায় সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে পাকিস্তানী সেনা বাহিনী কাশ্মীরে প্রবেশ করে এবং কাশ্মীরের একাংশ দখল করে নেয়। যা এখন আজাদ কাশ্মীর বলে পরিচিত। পাকিস্তানের প্রবেশের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে ভারত জাতিসংঘে অভিযোগ উত্থাপন করে ১৯৪৮ সালে। ভারতের অভিযোগের ভিত্তিতে জাতিসংঘ ১৯৪৮ সালের জানুয়ারী ও এপ্রিলে দুটি প্রস্তাব গ্রহণ করে। ৩৯ নম্বর প্রস্তাব হলো সীজ ফায়ার এবং অবস্থানের কোন পরিবর্তন না করা। ৪১ নম্বর প্রস্তাবে গণভোটের কথা বলা হয়েছে। ভারত প্রস্তাব দুটো মেনে নিয়ে এসেছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন করেনি। বর্তমানে কাশ্মীর তিন ভাগে বিভক্ত। গিলগিট ও বাল্টিস্তান আজাদ কাশ্মীর নামে পাকিস্তানের সাথে রয়েছে। জম্মু কাশ্মীর ও লাদাখ ভারতের দখলে। আকশাই চীন ও ট্রান্স কারাকোরাম চীনের দখলে। বৃহত্‍কাশ্মীরের সকল অংশেই মুসলীম জনসংখ্যার হিস্যা হচ্ছে ৯০ভাগ। হিন্দু ও বৌদ্ধ শাসনের অবসান হলে ১৩৪৯ সালে শাহ মীর এখানে সোয়াতি বংশের রাজত্বির সুচনা করেন। সোয়াতিরা ছিলেন পাঠান। ১৫২৬ সালে কাশ্মীর মোঘল অধিকারে আসে এবং ১৭৫১ সাল পর্যন্ত মোঘল শাসনেই ছিল। পরে পাঠান দুররানীরা কাশ্মীর দখলে নেয় এবং সেই দখল ১৮২০ সাল পর্যন্ত ছিল। মহারাজা গুলাব সিং পরে তা সাড়ে সাত লাখ টাকায় ইংরেজদের কাছ থেকে কিনে নেয়। হরি সিংয়ের বেঈমানীর ফলে কাশ্মীর ভারতের দখলে চলে যায়। কিন্তু যেসব দেশীয় রাজা মহরাজা বা নবাব নিজাম স্বাধীন রাজ্য হিসাবে থাকতে চেয়েছিল তা তারা পারেনি। যদিও ভারত স্বাধীনতার ঘোষণায় বলা হয়েছিল নিজেদের ইচ্ছামত সিদ্ধান্ত নিবে। ভারত সে সুযোগ দেয়নি। ১৯৪৮ সালেই সেনা বাহিনী পাঠিয়ে হায়দ্রাবাদ গোয়া দমন দিউ আন্দামান দখল করে নেয়। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতেও স্বাধীনতা যুদ্ধ চলছে বিগত ৫০ বছর ধরে। ১৫ আগস্ট  ভারতের স্বাধীনতা দিবসে  ওসব রাজ্যে ভারতের জাতীয় পতাকা উড়েনা।

বুকার প্রাইজ প্রাপ্ত লেখিকা ও মানবাধিকার কর্মী অরুন্ধুতী রায় যে কথা বলে রাস্ট্রদ্রোহ মামলা মোকাবিলা করতে চলেছেন তা এখন ভারতের মুক্তচিন্তার সব মানুষের কথা। কাশ্মীরকে দখলে রাখার জন্যে লাখ লাখ সেন্য মোতায়েন করতে হয়েছে। জনগনের বাজেটের একটা বড় অংশ বিনা কারনে কাশ্মীরে ব্যয় করতে হচ্ছে। কাশ্মীরের কারনেই পাকিস্তানের সাথে ভারতের সম্পর্কের উন্নতি হচ্ছেনা। অপরদিকে সীমান্ত বিরোধের কারণে ভারতের সাথে চীন বাংলাদেশ পাকিস্তানের সাথে তিক্ততা চলছে। চারটি দেশের শান্তিকামী মানুষ এই অবস্থা আর দেখতে চায়না। বিগত ৬০ বছরেও ভারত পাকিস্তান ও বাংলাদেশ জনগনের দারিদ্র দূর করতে পারেনি। কোটি কোটি মানুষ শিক্ষার বাইরে রয়ে গেছে। সবচেয়ে করুন অবস্থা হচ্ছে ভারতের। ২৫ কোটি হরিজন বা অচ্যুতকে মানুষের স্বীকৃতি দেয়া হয়নি ধর্মের কারণে। সেই ভারত নিজেকে স্যেকুলার প্রগতিশীল গনতন্ত্রী মনে করে। সেই ভারত আনবিক বোমা তৈরী করে প্রতিবেশী দেশগুলোকে ভয় দেখাবার জন্যে।

এরশাদ মজুমদার কবি ও সাংবাদিক( ershadmz40@yahoo.com)

Read Full Post »

Older Posts »